মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স

উপজেলার ইতিহাস

 

ইতিহাস

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পরবর্তী সময়ে ১৯৬০ সালে ত্রিপুরা জেলার নামকরণ করা  হয় কুমিল্লা। ১৯৮৪ সালে উপজেলা পদ্ধতি চালু হলে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসিনক ইউনিট হিসেবে আদর্শ সদর উপজেলা সরকারী উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নপূর্বক জনগনের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রেখে চলেছে। পরবর্তীতে ২০০৫ সালে এ উপজেলার দক্ষিণ ভাগের কিছু অংশ নিয়ে সদর দক্ষিণ নামে একটি নতুন উপজেলা সৃষ্টি করা হয়েছে।

 

দেশের বিভিন্ন আন্দোলনের সাথে এ উপজেলার সম্পৃক্ততার ইতিহাস খুবই সমৃদ্ধ। ১৭৬৪ সালে সমশের গাজীর নেতৃত্বে সংঘটিত ত্রিপুরার রাজাদের বিরুদ্ধে কৃষক আন্দোলন কুমিল্লার ইতিহাসে উজ্জ্বল ঘটনা। প্রিন্স ওয়ালেসের ভারত ভ্রমণের প্রতিবাদে ২১ শে নভেম্বর ১৯২১ সালে দেশব্যাপী আহুত ধর্মঘটে এ উপজেলাবাসী সক্রিয় অংশ গ্রহণ করে। সে সময় বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম এ শহরে অবস্থান করছিলেন এবং তিনি বিভিন্ন দেশাত্মবোধক গান ও কবিতা লিখে কুমিল্লার জনগণকে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। গান্ধী অভয়াশ্রম নামের প্রতিষ্ঠানটি এসময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

 

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে আদর্শ সদর উপজেলার জনগণ সক্রিয় অংশগ্রহণ করেছে। উপজেলার কয়েকটি স্থানে গণহত্যা সংঘটিত হয় যেমন কোটেস্বর, রসুলপুর ইত্যাদি ।

 

প্রসিদ্ধি

ঐতিহাসিক নির্দশনের মধ্যে শাহ সুজা মসজিদ, রানীরকুঠি কুমিল্লার প্রাচীন ইতিহাসের সাক্ষ্য বহনকরেছ। দেশবিখ্যাত কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ এবং কুমিল্লা জেলা স্কুল এখানকার সবচেয়ে প্রাচীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

 

গোমতীর তীরে অবস্থিত এ উপজেলায়বেশ কয়েকটি বিখ্যাত জলাশয় রয়েছে। যেমন: ধর্মসাগর, রানীর দীঘি, নানুয়ার দীঘি, উজির দীঘি ইত্যাদি।

 

এ উপজেলায়বহু মনীষী জন্মগ্রহণ করেছেন যারা বিভিন্ন সময়ে জাতীয় ও আন্তজার্তিক পর্যায়ে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছেন। নবাব সিরাজুল ইসলাম, হরদয়াল নাগ, মহেশ চন্দ্র ভট্টাচার্য, নবাব স্যার সামশুল হুদা, রায় বাহাদুর অমিন্দচন্দ্র রায়, সৈয়দ আবদুল জব্বার, বসন্ত কুমার মজুমদার, ধীরেন্দ্র নাথ দত্ত, শচীন দেব বর্মন, এম এ আযম প্রমুখের সমাজসেবা, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক অবদানের কথা কুমিল্লাবাসী কখনও ভুলবেনা। ওস্তাদ মোহাম্মদ হোসেন, ফজলে নিজামি এবং ফুলেন্দু দাস কুমিল্লার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে সমৃদ্ধ করেছেন। এছাড়া বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী ডঃ আখতার হামিদ খান তার উদ্ভাবিত কুমিল্লা মডেল এ উপজেলা থেকেই শুরু করেন এবং এর সফল ব্যবহারের মাধ্যমে আর্ন্তজাতিকভাবে সুনাম অর্জন করেন।

 

এ উপজেলার রসমালাই ও খদ্দর সারাদেশে সুখ্যাতিঅর্জন করেছে।

 

উল্লেখ্য যে, বর্তমানে উপজেলা সদর অফিসটি শহরের কুচাইতলি এলাকায় অবস্থিত।